ব্রেকিং:
একে একে ১৩টি কফিন নিলো পরিবার তাপমাত্রা একদফা কমে বিদায় নেবে শীত

শনিবার   ২৩ মার্চ ২০১৯   চৈত্র ৮ ১৪২৫   ১৫ রজব ১৪৪০

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
সর্বশেষ:
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই মেক্সিকোতে জ্বালানি পাইপলাইনে বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩ স্বাস্থ্যখাতের মাফিয়া ডন মিঠু! সংরক্ষিত মহিলা আসনে লাকসামের রিনা আলম আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী অনিয়মে শাস্তি পেল ৩৭ হজ এজেন্সি প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় নেতাদের নামে ফেসবুক খুলে প্রতারণা, গ্রেফতার ৫ ২৭ জানুয়ারি থেকে মোবাইল ফোনের সাত দিনের নিচের সব প্যাকেজ বন্ধ
৩৮

ব্রণে নখ লাগলে কী হয়?

লাইফস্টাইলঃ

প্রকাশিত: ২৬ নভেম্বর ২০১৮  

ব্রণ সমস্যায় অনেকেই উদ্বিগ্ন থাকেন! ব্রণ খোটাখুটি করা আবার অনেকের অভ্যাসে পরিণত হয়। এতে করে ব্রণের জায়গাটিতে ইনফেকশন হয় কখনো আবার কালো স্পট পড়ে যায়। এজন্য পিম্পলে কখনো নখ বা ব্রণ স্টিক লাগানো উচিত নয় বরং ওটাকে স্বাভাবিকভাবে থাকতে দিন। আর যদি ভুলেও খোঁটাখুঁটি করতে যান, আপনি যে তরল পদার্থ বের করে আনবেন সেটি ইনফেকশন তৈরি করে মুখে জন্ম দেবে আরো অনেক পিম্পল! কীভাবে? চলুন জেনে নেয়া যাক!

পিম্পল হলো চামড়ার নিচে থাকা তেল ও ব্যাকটেরিয়ায় টইটুম্বুর একটি থলে।পিম্পলগুলো সেবাশিয়াস গ্ল্যান্ড নামক এক ধরণের তেল নিঃসরণকারী গ্রন্থি বহন করে। মুখ ও মাথার ত্বকে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক সেবাশিয়াস গ্ল্যান্ড উপস্থিত থাকে।ত্বকের রন্ধ্রগুলো এই সেবাশিয়াস গ্ল্যান্ড থেকে নিঃসৃত তেলে পূর্ণ থাকে যাতে ত্বক ও চুল মসৃণ থাকে ও জল শোষণ না করে।

তবে অনেক সময় ত্বকের রন্ধ্রে মৃত কোষ এবং ব্যাক্টেরিয়া জমে যাওয়ায় তেলের জন্য জায়গা হয় না। ফলে তা উপরে এসে পানি ভরতি বেলুনের মতো গঠন তৈরি করে। এই বেলুনাকৃতির গঠন তখন চামড়ার নিচে ফুলতে থাকে ও চামড়া ঠেলে বেরিয়ে আসতে চায়। ফলে চামড়ার ওই জায়গাটি লাল হয়ে যায়, ফুলে যায় ও ব্যাথার সৃষ্টি হয়। এমতাবস্থায় পিম্পলটিকে ফাটিয়ে দিলে হয়তো ব্যাথা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে, কিন্তু তাতে করে সাময়িক স্বস্তি পেলেও পরিণাম খুব একটা সুখকর হয় না।

মেলবোর্ন এর সেইন্ট ভিনসেন্ট হাসপাতালের ডার্মাটালোলজিস্ট মিশেল রদ্রিগেজ বলেন, পিম্পলকে চাপ দেয়া হলে তার ভেতরকার পদার্থ বেরিয়ে এসে চারপাশের ত্বকের কোষে ছড়িয়ে যেতে পারে, এ কারণে সমস্যা কমার বদলে আরো বেড়ে যেতে পারে। এটি ইনফেকশনের সৃষ্টি করতে পারে, ত্বকের ওই অঞ্চলটি সাময়িকভাবে কালো হয়ে যেতে পারে ও ত্বকের প্রদাহ বেড়ে যেতে পারে।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ১১ থেকে ৩০ বছর বয়সী প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষ কোনো না কোনো সময়ে মুখে ব্রণ বা পিম্পলের আধিক্য লক্ষ্য করে থাকেন। এটি থেকে পরিত্রান পাওয়ার উপায় কী? ধৈর্য্য ধারণ করা। ব্রণ নিয়ে খোঁটাখুঁটি না করলে এমনিতেই কিছুদিন পর তা মিইয়ে যায়, কোনো রকম পরবর্তী ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াই! তাই ধৈর্য্য ধরুন, পিম্পলে ভরা মুখমণ্ডল থেকে পরিত্রাণ পান!