বুধবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০   আশ্বিন ১৪ ১৪২৭   ১১ সফর ১৪৪২

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
১১০

নেত্রকোনায় আরো একজনের লাশ উদ্ধার, পর্যটনের ট্রলার বন্ধ ঘোষণা

তরুণ কণ্ঠ রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৬ আগস্ট ২০২০  

নেত্রকোনার মদন উপজেলার পর্যটন কেন্দ্র মিনি কক্সবাজার নামে খ্যাত উচিতপুরের হাওরে ঘুরতে এসে ইঞ্জিনচালিত নৌকাডুবির ঘটনায় আরো একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এ নিয়ে নৌকাডুবির ঘটনায় ১৮ জনের মৃত্যু হলো।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বুলবুল আহমেদ তালুকদার জানান, ময়মনসিংহের কোনাপাড়া এলাকার রাকিবুল ইসলাম (৪৪) নামের একজন নিখোঁজ ছিল। গোবিন্দশ্রী রাজালীকান্দায় নৌকাডুবির ঘটনাস্থল থেকে ৫০০ গজ দূরে আজ  সকাল ৮টার দিকে একটি লাশ ভেসে উঠতে দেখে স্থানীয় লোকজন। তারা পুলিশে খবর দিলে লাশটি উদ্ধার করা হয়। রাকিবুলের লাশ পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। 

গতকাল বুধবার দুপুরে ময়মনসিংহ সদর উপজেলার চরসিরতা ইউনিয়নের চর ভবানীপুর গ্রামের মাকসুদা সুন্নাহ হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকসহ ৪৮ জন মদনের উচিতপুরের সামনের হাওর ভ্রমণে আসে। তারা সবাই ময়মনসিংহ ও গৌরীপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। নৌকায় করে হাওরে ঘুরতে গেলে হাওরের উত্তাল ঢেউয়ে গোবিন্দশ্রীর রাজালীকান্দা নামক স্থানে নৌকাটি ডুবে যায়। এ সময় অনেকে সাঁতরিয়ে পাড়ে এবং অন্য নৌকায় ওঠেন। দুজনের লাশও উদ্ধার করা হয়। ১৬ জন নিখোঁজ থাকে।

ট্রলারডুবির খবর পেয়ে দুপুরে ময়মনসিংহ থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল এসে পুলিশ ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় আরো ১৫ জনের লাশ উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত ১৭ জনের লাশ মদন থানা প্রাঙ্গণে রাখা হয়। ময়মনসিংহ ও গৌরীপুর থেকে মৃতের আত্মীয়-স্বজন আসার পর পরিচয় নিশ্চিত হলে স্বজনদের কাছে রাতের মধ্যেই মরদেহগুলো বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন ১. ময়মনসিংহের কোনাপাড়া এলাকার সাইফুল ইসলাম (৩০),২. জুবায়ের আহম্মদ (২২), ৩. জহিরুল ইসলাম (৩৫), ৪. জাহিদ হাসান (২০), ৫. শামীম হাসান (৩২), ৬. মাহফুজুর রহমান (২৮), ৭. আবু ইসহাক (৪০), ৮. আজাহারুল ইসলাম (৩৮), ৯. মাহমুদ মিয়া (১২), ১০. রেজাউল করিম (২১), ১১. মোজাহিদ (১৭), ১২. হামিদুল ইসলাম (৩৫), ১৩. মাহবুবুর রহমান আশিফ (১৯), ১৪. লুবনা (১০), ১৫. জুলফা (৭). ১৬. গৌরীপুর উপজেলার সামান (১০) ও ১৭.শফিকুর রহমান (৪৫)। নিখোঁজ ছিলেন ময়মনসিংহের কোনাপাড়া এলাকার রাকিবুল ইসলাম। আজ তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়।

মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রমিজুল হক জানান, মৃত ব্যক্তিদের শনাক্ত করে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মদন উপজেলার ইউএনও বুলবুল আহমেদ এ প্রতিনিধিকে জানান, ঘটনার পর পর জেলা প্রশাসক মঈনুল ইসলাম ও পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনসী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। বিষয়টি খুব মর্মান্তিক ও হৃদয় বিদারক। মরদেহ নেওয়া ও দাফন-কাফনের জন্য সাত হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে।

নেত্রকোনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু এমপি ট্রলারডুবির দুর্ঘটনায় নিহতের প্রতি শোক ও তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান এবং পুলিশ সুপারকে হাওর এলাকায় আজ থেকেই পর্যটকবাহী ট্রলারের অবাধ চলাচলে বন্ধ করার নির্দেশ দেন।

এই বিভাগের আরো খবর