রোববার   ১৪ এপ্রিল ২০২৪   চৈত্র ৩০ ১৪৩০   ০৫ শাওয়াল ১৪৪৫

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
১০৯

শেষ ম্যাচ জিতে হোয়াইটওয়াশ এড়াল নিউজিল্যান্ড

প্রকাশিত: ৮ মে ২০২৩  

নিউজিল্যান্ডের হয়ে লড়লেন উইল ইয়ং-টম ল্যাথামরা। বোলিংয়ে জাদু দেখালেন হেনরি শিপলি।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে লড়লেন উইল ইয়ং-টম ল্যাথামরা। বোলিংয়ে জাদু দেখালেন হেনরি শিপলি।

অপরদিকে প্রতি ম্যাচে জ্বলে উঠা পাকিস্তানের টপ-অর্ডার আজ ব্যর্থ হয়। তবে মিডল অর্ডারে একাই লড়েন ইফতেখার আহমেদ। যদিও সঙ্গীর অভাবে তিন অঙ্ক ছোঁয়া হয়নি তার। হারতে হয় দলকেও।
পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানকে ৪৭ রানে হারায় নিউজিল্যান্ড। তবে স্বাগতিকরা সিরিজ জিতে নেয় ৪-১ ব্যবধানে। করাচি জাতীয় স্টেডিয়ামে আগে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারের তিন বল আগে সবগুলো উইকেট হারানোর আগে কিউইরা সংগ্রহ করে ২৯৯ রান। জবাব দিতে নেমে পাকিস্তান গুটিয়ে যায় ২৫২ রানে।  

টম ব্লান্ডেলকে (১৫) হারিয়ে শুরু হয় নিউজিল্যান্ডের ইনিংস। তিনে নেমে হেনরি নিকসল যোগ করেন ২৩ রান। এরপর একপ্রান্তে লড়তে থাকা ওপেনার ইয়ংকে সঙ্গ দেন ল্যাথাম। গড়েন ৭৪ রানের জুটি। ৫৮ বলে ফিফটির দেখা পান ইয়ং। এরপর সেঞ্চুরির পথে এগোতে থাকেন তিনি। তবে পারেননি। ৮৭ রান করে হারান উইকেট। তার ৯১ বলের ইনিংসটি গড়া ছিল ৮ চার ও ২ ছক্কায়।  

পাঁচে নেমে মার্ক চ্যাপমান ৫৬ রানের জুটি গড়েন ল্যাথামের সঙ্গে। ল্যাথাম ফিফটির দেখা পান ৫৩ বলে। জড়ো শুরু করা চ্যাপমানকে ৪৩ রানে বিদায় করে এই জুটি ভাঙেন শাদাব খান। ল্যাথামও বিদায় নেন ৫৯ রান করে। এরপর ম্যাককনি এসে যোগ করেন ২৬ রান। শেষদিকে রাচিন রবিন্দ্র করেন ২৮ রান। বাকি কেউই ছুঁতে পারেননি দুই অঙ্কের ঘর।  

পাকিস্তানের হয়ে ১০ ওভারে ৪৬ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। জোড়া উইকেট পান উসামা মির ও শাদাব খান। একটি উইকেট শিকার করেন হারিস রউফ ও মোহাম্মদ ওয়াসিম।

তিনশ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৫২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে পাকিস্তান। শান মাসুদ ৭, বাবর আজম ১ ও রিজওয়ান ৯ রান করে বিদায় নেন। ফখর জামানও আজ জ্বলে উঠতে পারেননি। ৩৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। এরপর ইফতেখারকে নিয়ে ৯৭ রানের জুটি গড়েন আঘা সালমান। ৪৬ বলে পূর্ণ করেন ফিফটি। তবে আর ৭ রান যোগ করতেই হারান উইকেট। তার ৫৭ রানের ইনিংসটি সাজানো ছিল ৬ চার ও এক ছক্কায়।  

একপ্রান্তে লড়তে থাকা ইফতেখারও দেখা পান ফিফটির; ৪৮ বলে। তবে অরপ্রান্তে উইকেট হারাতে থাকে বাকি ব্যাটাররা। ১৪ রানে শাদাব খানের বিদায়ের পর ২০ রান করে উইকেট হারান উসামা মিরও। বাকি তিন উইকেটও দ্রুতই হারিয়ে ফেলে পাকিস্তান। তবে অপরাজিত থাকেন ইফতেখার। তার ৯৪ রানের এই ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসটি সাজানো ছিল ৮ চার ও দুই ছক্কায়।

নিউজিল্যান্ডের পক্ষে ৯ ওভারে ৩৪ রান দিয়ে ৩ উইকেট শিকার করেন শিপলি। সমান ‍উইকেট পান রাচিন রবিন্দ্রও। একটি করে উইকেট শিকার করেন অ্যাডাম মিল্নে, ম্যাট হেনরি ও ইশ শোধি। 

এই বিভাগের আরো খবর