সোমবার   ০৩ আগস্ট ২০২০   শ্রাবণ ১৯ ১৪২৭   ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
২২৭

শরীয়তপুরে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে আহত ১

নুরুজ্জামান শেখ, শরীয়তপুর প্রতিনিধি।

প্রকাশিত: ৪ জুলাই ২০২০  

শরীয়তপুরে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে আহত বৃদ্ধ মান্নান মাদবর (৮০) সদর হাসপাতালে  চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরন করেছেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জাজিরায় থানায় ১১ জনকে আসামী করে ধারার- ১৪৩,৪৪৭,৩২৩,৩২৬,৩০৭,৩৫৪,৫০৬,১১৪ পেনাল কোড-১৮৬০, একটি মামলা দায়ের হয়েছে। মৃত ব্যাক্তির লাশ ময়না তদন্তের পর পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে শরীয়তপুর জাজিরা উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নের উত্তর কেবলনগর গ্রামে। 

পুলিশ ও স্হানীয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৩ সনে একই গ্রামের বাদশা মাদবর (৩০) খুন হয়। উক্ত খুন মামলার ১ নং আসামী সদ্য মৃত্যুবরনকারী মান্নান মাদবর আদালতে দোষী প্রমান হলে আদালত তাকে ২০ বছর কারাদন্ড প্রদান করেন।

দশ বছর কারাভোগ করে সাধারন ক্ষমায় জিনি মুক্তি লাভ করেন। কারাগারে অবস্হান কালীন সময়ে তার কিছু ভূমি হাতছাড়া হয়ে যায়। জেল থেকে মুক্তি পেয়ে মান্নান মাদবর উক্ত ভূমি উদ্দারের মামলা করেন। পরে মামলার রায় পক্ষে আসে। উক্ত রায়ের বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের সিডা মাদবর উরফে লিয়াকত মাদবর আপীল করেন। 

উক্ত ভূমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গত ২৪ জুন উভয় পক্ষের কথা কাঁটা কাঁটির এক পর্যায়ে মারা মারি বেধে যায়। ঐ মারামারিতে মান্নান মাদবর সামান্য আহত হয়ে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর গত ২৯ জুন দিবাগত রাতে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং এর কিছুক্ষণ পর তিনি মৃত্যুর কোলে  ঢলে পড়েন। মান্নান মাদবর এর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে তার স্বজনরা প্রতিপক্ষের বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে কয়েক দফা লুটতরাজ করেন এবং অগ্নিসংযোগ করে কয়েকটি ঘর পুড়িয়ে দেয়। এ ব্যাপারে জাজিরা থানা পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন এবং রুসান নামে একজনকে গ্রেফতার করেন। 

বিষয়টি সম্পর্কে জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আজহারুল ইসলাম জানান এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মামলা হয়েছে। আসামীদের কে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। 

শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের তত্তাবধায়ক ডাঃ মুনির মুঠোফোনে জানান মান্নান মাদবর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। তার অবস্হা গুরুতর ছিলনা। ময়না তদন্তের পর জানা যাবে তার মৃত্যুর কারন। মামলার বাদী মৃত মান্নান মাদবরের ছেলে হাসান মাদবর গণমাধ্যমকে জানান জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় আমার বাবা গরুতর আহত হয় এবং সদর হাসপাতালে মৃত্যু বরন করে। আমার বাবার মৃত্যুর কারন সঠিক ভাবে উৎঘাটন করে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হোক।

এই বিভাগের আরো খবর