এই দিন

শনিবার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২০   অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৭   ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
৩৬৯

গুলশানে মেরিনা বিউটি সেলুন অ্যান্ড স্পার নামে চলছে অবৈধ দেহব্যবসা

স্টাফ রিপোর্টারঃ

প্রকাশিত: ২১ অক্টোবর ২০২০  

গুলশান-১, রোড নং- ২৬, হাউজ নং- ২০/c, লেভেল-৪ এ অবস্থিত মেরিনা বিউটি সেলুন অ্যান্ড স্পার নামে চলছে অবৈধ দেহ ব্যবসা। গুলশানে মেরিনা বিউটি সেলুন অ্যান্ড স্পা প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক পেজে স্পা বিজ্ঞাপন হিসেবে প্রচার এমন বিজ্ঞাপনটিতে গ্রাহকের দুই ধরনের মেসেজ দেওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। নুর মেসেজ ও বডি টু বডি মেসেজ। মেয়েদের কি দিয়ে মেসেজ করা হয় ম্যাসেজ পার্লারে এমন বিজ্ঞাপনে মেসেজ দিচ্ছে আর অশ্লীলতা করে যাচ্ছে। অশ্লীল বিজ্ঞাপন আর মেয়েদের প্রলোভন দেখিয়ে মেয়েদের বডি মেসেজ এর কার্যক্রম পরিচালনা করে। এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার মিস মায়া সহ আরো অনেক জড়িত আছে যারা হলেন মোহাম্মদ পাপ্পু, মোঃ মুন্না। এখানে বয়স ভিত্তিক বিভিন্ন ক্যাটেগরিতে ১০ থেকে ১৫ জন মেয়ে দিয়ে মেসেজ করানো হয়। বয়স ছাড়াও মেসেজে পারদর্শী ও অ-পারদর্শী আলাদা ক্যাটাগরি রয়েছে।  ইউনিভার্সিটি পড়ুয়া কমবয়সী মেয়েরাও আছে এখানে। যদি কেউ কেউ প্রশিক্ষিত মেয়েদেরকে দিয়ে সারা শরীর ম্যাসেজ করতে চান তাহলে খরচ পড়বে প্রতি ঘন্টা ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা, এছাড়াও আরো ভালো ক্যাটাগরি আকর্ষণীয় মেয়েদের ক্ষেত্রে প্রতি ঘন্টা ৬ থেকে ৭ হাজার টাকা নিচ্ছে।

এ ব্যাপারে পুলিশের ঝামেলার কথা জিজ্ঞেস করলে, মেরিনা বিউটি সেলুন অ্যান্ড স্পার মালিক মিস মায়া জানান "কোন সমস্যা নেই" আমাদের সব বৈধতার কাগজ আছে। আমরা প্রশাসনকে ম্যানেজ করি, এবং নিয়মিত মাসোহারা দেই, কোন সমস্যা নেই। সবাইকে ম্যানেজ করে আমরা এই স্পা সেন্টার চালাই।

পরক্ষণে দৈনিক তরুণকণ্ঠ প্রতিবেদক`কে স্পা সেন্টার এর মালিক মিস মায়া, মুন্না,পাপ্পু সহ জানান, আমরা এখানে কি করি তা সবার জানা আছে। পরে নানান তালবাহানার মাধ্যমে সংবাদকর্মীকে হুমকির ইঙ্গিত করেন।

বিগত দিনে মেরিনা বিউটি সেলুন অ্যান্ড স্পা এর মালিক মিস মায়া এবং পাপ্পু ডিবি পুলিশের অভিযানে অসামাজিক কার্যকলাপে দায়ে একাধিক নারী ও পুরুষ সহ গ্রেফতার হন। ছাড়া পাওয়ার পরেও থেমে নেই তাদের কার্যক্রম। ক্রমেই বাড়ছে তাদের তৎপরতা। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে দীর্ঘদিন চলছে তাদের রমরমা বাণিজ্য।

এই বিষয়ে গুলশান থানার ওসি আবুল হোসেন বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত এই ধরনের অবৈধ প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি এবং কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের মামলাও দিয়েছ। তাছাড়া এই ধরনের অবৈধ ব্যবসা কাউকে চালাতে দেওয়া হবে না।

এই বিভাগের আরো খবর