বুধবার   ২০ অক্টোবর ২০২১   কার্তিক ৪ ১৪২৮   ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
১৫৯

শরীয়তপুরে রড দিয়ে পিটিয়ে শাশুড়ির হাত ভেঙ্গে দিল মেয়ের জামাই

নুরুজ্জামান শেখ শরীয়তপুর থেকে

প্রকাশিত: ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১  


নুরুজ্জামান শেখ।শরীয়তপুর থেকে

শরীয়তপুরে উভয় পারিবারিক কলহের জেরে হত্যার উদ্দেশ্যে রড দিয়ে পিটিয়ে বৃদ্ধ শাশুড়ি আমিরজান বেগমের হাত ভেঙ্গে দিল আপন মেয়ের জামাই সাইফুল খান (৩০)।

গত ২৪ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে আটটার দিকে শরীয়তপুর সদর পালং উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের পশ্চিম চর সোনামুখী গ্রামে এ ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা জানা গেছে গত চার বছর পূর্বে মোছলেম খান তার একই গ্রামে আজিজ খানের পুত্র সাইফুল খান(৩০)এর সাথে তার মেয়ে সুমি আক্তার কে পারিবারিকভাবে বিবাহ দেন।

বিবাহের পর থেকেই স্বামী এবং তার পরিবারের সদস্যরা যৌতুকের দাবিতে বিভিন্ন সময়ে সুমি আক্তার এর উপর অমানুষিক নির্যাতন করে আসছে। এই ঘটনার কিছুদিন পূর্বে যৌতুকের দাবিতে সুমি আক্তারের স্বামী সাইফুল খান যৌতুকের দাবিতে সুমি আক্তার কে মারপিট নির্যাতন করে। মারপিট ও টাকা চাওয়ার বিষয়টি সুমি আক্তার পিতা মোছলেম খানকে জানালে পিতা নিরুপায় হয়ে পালং থানায়  জামাই সাইফুল খান এর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করে। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে পালং থানার এসআই রোমান তদন্ত সাপেক্ষে চর সোনামুখী ঘটনাস্থলে যায় এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কে ডেকে বিষয়টি মীমাংসা করে দেওয়ার প্রস্তাব রাখে। গত ২৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকেলবেলা এস আই রোমান ঘটনাস্থল থেকে চলে আসলে মেয়ের জামাই সাইফুল খান এবং তার পরিবারের সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে ঐদিন সাড়ে আটটার দিকে রাস্তার উপর মোছলেম খানের স্ত্রী বৃদ্ধ আমিরজান বেগম কে একা পেয়ে জামাই সাইফুল খান ও তার পরিবারের সদস্যরা হত্যার উদ্দেশ্যে দেশীয় ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা রড দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। ওই মুহূর্তে আমিরজান বেগম বাঁচার জন্য চিৎকার করিলে স্থানীয় পথচারী মোহাম্মদ মাহবুব সিকদার(৩২) ঘটনাস্থলে এসে বৃদ্ধ আমিরজান বেগমকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ইজিবাইক যোগে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে।বর্তমানে বৃদ্ধ আমিরজান বেগম শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভর্তি রয়েছে এবং তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। এক্স-রে রিপোর্টে দেখা গেছে তার বাম হাত ভেঙ্গে চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে গেছে। সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা যাওয়ার পরামর্শ দেন। বৃদ্ধ আমিরজান বেগমের স্বামী মোছলেম খান নিরুপায় হয়ে স্ত্রীর বিচারের দাবিতে পালং থানায় মেয়ের জামাই সাইফুল খান এবং মেয়ের শ্বশুর আজিজ খান(৫২) সহ, মোতালেব খান(৪০),সেলিম খান(৩৫), মাহিনুর বেগম(৩৫), রাজিয়া বেগম(৩৫) এদেরকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করে। মোছলেম খান গণমাধ্যমকে বলেন আমার স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশে যারা মেরেছে তাদেরকে আসামি করে পালং থানায় মামলা করেছি। মামলা দেওয়ার কারণে আমি এখন জানমালের নিরাপত্তা ভুগতেছি এবং কি আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দিতেছে। তাদের ভয় আমি বাড়ি যেতে পারছিনা।

পালং থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আক্তার হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি মামলা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই বিভাগের আরো খবর