সোমবার   ৩০ জানুয়ারি ২০২৩   মাঘ ১৬ ১৪২৯   ০৮ রজব ১৪৪৪

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
৩১

৬০ শিল্পীর হাতের ছোঁয়ায় উঠে এলো বরেন্দ্র অঞ্চলের চিত্র

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২২ জানুয়ারি ২০২৩  

পুরনো মাটির দোতলা বাড়ি। পাশেই সবুজের বিস্তৃত বিশাল মাঠ। সেখানে সরিষাক্ষেতে খেলা করছে মৌমাছি ও প্রজাপতি। সবুজ আর হলুদে মোড়ানো এমন প্রকৃতির খোলা মাঠেই চলেছে আর্ট ক্যাম্পের আয়োজন। এ ক্যাম্পে বরেন্দ্র অঞ্চলের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বিভিন্ন ছবি ফুটিয়ে তুলেছেন শিল্পীরা। এতে অংশ নিয়েছেন ঢাকা, রাজশাহী, জগন্নাথ, খুলনাসহ বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাপচিত্র বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

শনিবার (২১ জানুয়ারি) রাজশাহী কাকনহাট এলাকার আদারপাড়া গ্রামের বিশাল মাঠে দুদিনব্যাপী এ আর্ট ক্যাম্পের আয়োজন করে মজুমদার প্রিন্টস ল্যান্ড ছাপচিত্র স্টুডিও।jagonews24
আরও পড়ুন: ‘লাশও তোর পরিবার খুঁজে পাবে না’ ছাত্রলীগ নেতার হুমকি 

মজুমদারস প্রিন্ট ল্যান্ড হচ্ছে ঢাকার একটি অলাভজনক ছাপচিত্র স্টুডিও। তারা ২০২১ সালে দেশে প্রথম আউটডোর প্রিন্টমেকিং ক্যাম্পের আয়োজন করে। ২০২২ সালে ঢাকার অদূরে কেরানীগঞ্জে অনেকটা ব্যক্তি উদ্যোগে এ ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়। এবার রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার রিশিকুল ইউনিয়নের আদারপাড়া সাঁওতালপল্লিতে এ আয়োজন হয়।

পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ৬০ জন শিল্পী এ আর্ট ক্যাম্পে অংশ নেন। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবন যাত্রাকে তুলে ধরতে আয়োজকরা এমন উদ্যোগ নিয়েছেন। এ ক্যাম্পে ছবি প্রিন্ট করার জন্য মেশিনও সঙ্গে করে খোলা মাঠে আনা হয়েছে।

আরও পড়ুন: এবার বাবুর পাশে দাঁড়ালেন রাবির সাবেক ছাত্র আব্দুল আলিম 

বরেন্দ্র অঞ্চলের গ্রামীণ প্রকৃতির বিভিন্ন ছবি মোবাইল ফোনে তুলে এনে আর্ট করেন শিক্ষার্থীরা। এতে স্থান পেয়েছে সরষে ক্ষেতের মাঠ, মাটির দোতলা ঘর, সূর্যের রশ্মি, মাটির দরজা, তালগাছের ছবি, পোড়া মাটির ছবি, গ্রামীণ এলাকাসহ বিভিন্ন বরেন্দ্র অঞ্চলের বিভিন্ন প্রকৃতির ছবি। আঁকা শেষ হলে প্রিন্ট করে আর্ট ক্যাম্পে ঝুলিয়ে রাখেন শিল্পীরা।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাপচিত্র বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সাফিন ইমতিয়াজ বলেন, শহরের যান্ত্রিকতাকে পেছনে ফেলে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমরা ছাপচিত্র বিভাগের শিক্ষার্থীরা এক হয়েছি রাজশাহীর প্রত্যন্ত অঞ্চলের একটি গ্রামে। যার মধ্য দিয়ে আমরা ছাপচিত্রকে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পারবো। প্রকৃতি আমাদের বড় শিক্ষক। সাঁওতাল পল্লী গ্রামের মানুষের যে সরলতা, সেই বিষয়টা নিয়ে আমাকে নতুন করে ভাবতে শিখিয়েছে।

jagonews24
আরও পড়ুন: ‘জলে ডোবে না’ চলচ্চিত্রের প্রথম প্রদর্শনী রাজশাহীতে 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের খণ্ডকালীন শিক্ষক মোহাম্মদ ফখরুল ইসলাম মজুমদার বলেন, ছবি আঁকার মাধ্যমটিকে সাধারণ মানুষের কাছে আরও পরিচিত করে তোলা এবং দেশের প্রিন্টমেকিংয়ের চর্চা বাড়ানোসহ সর্বোপরি শিল্পকে মানুষের কাছে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্য আমাদের। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চিত্রকলা প্রাচ্যকলা ও স্থানীয় শিল্পীদের প্রিন্টমেকিং চর্চায় উৎসাহিত করতে এ আয়োজন। একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগ স্থাপনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

এই বিভাগের আরো খবর