ব্রেকিং:
একে একে ১৩টি কফিন নিলো পরিবার তাপমাত্রা একদফা কমে বিদায় নেবে শীত

শনিবার   ২৩ মার্চ ২০১৯   চৈত্র ৮ ১৪২৫   ১৫ রজব ১৪৪০

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
সর্বশেষ:
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই মেক্সিকোতে জ্বালানি পাইপলাইনে বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩ স্বাস্থ্যখাতের মাফিয়া ডন মিঠু! সংরক্ষিত মহিলা আসনে লাকসামের রিনা আলম আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী অনিয়মে শাস্তি পেল ৩৭ হজ এজেন্সি প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় নেতাদের নামে ফেসবুক খুলে প্রতারণা, গ্রেফতার ৫ ২৭ জানুয়ারি থেকে মোবাইল ফোনের সাত দিনের নিচের সব প্যাকেজ বন্ধ
৪৪

শীতে খাবেন যে সবজিগুলো

লাইফস্টাইলঃ

প্রকাশিত: ২৬ নভেম্বর ২০১৮  

শীতের আমেজ চলে এসেছে। ঠান্ডা ঠান্ডা ভাব। এ সময়ে শরীরে নানা রকমের সমস্যা দেখা দেয়। আবার এ সময় রান্না ঘরেও আসে নতুন নতুন সব সবজি। তাই শীতে শরীরের প্রয়োজনীয় পুষ্টি মেটাতে বিভিন্ন সবজি খাওয়া উচিত। কারণ শাক সবজিতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে।এতে প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও খনিজ উপাদান থাকে। তাই এ ধরণের সবজিগুলো বুঝে বা জেনে খেলে শীতকালে সুস্থ থাকতে পারবেন। তবে শীতের যাবতীয় সমস্যাগুলো দূরে চলে যাবে।

গাজর: এতে প্রচুর দুই ধরণের আঁশ রয়েছে। একটি হলো দ্রবণীয় আর অপরটি হলো অদ্রবণীয়। যেগুলো ওজন কমানোর জন্য খুবই উপকারি। সেই সঙ্গে শীতকালে আমাদের ত্বক কুঁচকে ও ফেটে যাওয়ার সম্ভাবণা থাকে। কারণ গাজরে ক্যারোটিনয়েড উপাদান রয়েছে। যা শরীরে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। আর এ ক্যারোটিনয়েড আমাদের শরীরে বয়সের ছাপ দূর করতে সাহায্য করে। তাই শীতকালে গাজর খেতে পারলে ত্বকের কুচকানো ভাব অনেকটাই কমে যাবে। শীতে ত্বক কালো দেখানো ভাবও থাকবে না।

পালং শাক: পালং হলো শীতের শাক। পালং শাক সকলেরই পছন্দের। এতে প্রচুর পুষ্টি উপাদান রয়েছে। এছাড়াও পালং শাকে ভিটামিন ও মিনারেলস রয়েছে আর ক্যালরি খুবই কম রয়েছে। তাই যাদের পেটে চর্বি বেশি বা ওজন দ্রুত বৃদ্ধি পায়, তারা এ সময় প্রচুর পরিমাণে পালং শাক খাবেন। কারণ পালং শাক ক্যান্সার প্রতিরোধী হিসেবে কাজ করে। এটি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবেও কাজ করে থাকে।

মুলা: মুলা কেন খাব? কারণ এটি লিভার ও পাকস্থলী দুটোকেই পরিষ্কার ও টক্সিনমুক্ত করে থাকে। এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইভার বা আঁশ রয়েছে। সব থেকে ভালো হলো ভিটামিন সি যুক্ত সাদা মুলো। আর এ ধরণের সাদা মুলোগুলো শীতকালেই বেশি পরিমাণে পাওয়া যায়। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে। এছাড়াও মুলাতে রয়েছে সালফার। এ উপাদানটিও শরীরের জন্য উপকারি।

সরষে শাক: শীতকালে অনেকের বাড়িতেই সরষে শাক বা ফুল দিয়ে বড়া বানানো হয়। এ সরষে শাক ওজন কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও এতে রয়েছে ভিটামিন সি, আয়রন, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ ইত্যাদি। যার জন্য এটা কনষ্টিপেশন রোধ করতেও সাহায্য করে।

বিট: শীতকালীন এই সবজিতে কোনো চর্বি নেই। এছাড়াও ক্যালরির মাত্রাও খুবই কম। বিট শরীরকে টক্সিনমুক্ত রাখতে সাহায্য করে। এতে পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন, ভিটামিন বি, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি ও নাইট্রেট রয়েছে। তাই বিট খাওয়া খুবই জরুরি। যাদের মুখে ব্রণ আছে বা তৈলাক্ত ত্বক তাদের জন্য বিট খাওয়া খুবই উপকারি।