মঙ্গলবার   ০৫ জুলাই ২০২২   আষাঢ় ২০ ১৪২৯   ০৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

ঈদযাত্রায় সড়কে ৪১.৪৮ শতাংশ মৃত্যুই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায়

প্রকাশিত : ০৩:৫৭ পিএম, ১২ মে ২০২২ বৃহস্পতিবার

ঈদুল ফিতরের আগে-পরে ১৪ দিনে (২৫ এপ্রিল থেকে ৮ মে) দেশে ২৮৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭৬ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে দেড় হাজার লোক। নিহতের মধ্যে ৩৮ জন নারী ও ৫১ শিশু রয়েছে।

এসময়ে সবচেয়ে বেশি ১২৮টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১৫৬ জনের প্রাণহানি হয়েছে। যা ১৪ দিনে সড়কে মোট মৃত্যুর ৪১.৪৮ শতাংশ। দুর্ঘটনায় ৫৪ জন পথচারী নিহত হয়েছেন, যা মোট মৃত্যুর ১৪.৩৬ শতাংশ। যানবাহনের চালক ও সহকারী নিহত হয়েছেন ৪৯ জন, যা ১৩ শতাংশ।


একই সময়ে ৭টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৫ জন নিহত ও ২ জন আহত হয়েছেন এবং ২ জন নিখোঁজ রয়েছেন। ১৭টি রেলপথ দুর্ঘটনায় ১৯ জন নিহত এবং ৩ জন আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ঈদের পূর্বাপর ১৪ দিনে দেশের বিভিন্ন রুটে দুর্ঘটনায় হতাহতের ঘটনায় এ জরিপ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রোড সেফটি ফাউন্ডেশন। দেশের বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক, অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং টেলিভিশন চ্যানেলে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্যের ভিত্তিতে এ তথ্য তুলে ধরেছে সংস্থাটি।

যানবাহনভিত্তিক নিহতের চিত্র:
দুর্ঘটনায় যানবাহনভিত্তিক নিহতের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, মোটরসাইকেল চালক ও আরোহী ১৫৬ জন (৪১.৪৮%), বাসযাত্রী ৩২ জন (৮.৫১%), ট্রাক-পিকআপ-ট্রাক্টর-ট্রলি আরোহী ২০ জন (৫.৩১%), মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-জিপের যাত্রী ১৫ জন (৩.৯৮%), থ্রি-হুইলার যাত্রী (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-টেম্পু) ৭৮ জন (২০.৭৪%), স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহনের যাত্রী (নসিমন-ভটভটি-টমটম-মাহিন্দ্রা) ১৩ জন (৩.৪৫%) এবং বাইসাইকেল-প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান আরোহী ৮ জন (২.১২%) নিহত হয়েছেন।

দুর্ঘটনা সংঘটিত সড়কের ধরন:
রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ বলছে, দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে ১৩২টি (৪৬.৬৪%) জাতীয় মহাসড়কে, ৮৭টি (৩০.৭৪%) আঞ্চলিক সড়কে, ৪১টি (১৪.৪৮%) গ্রামীণ সড়কে এবং ২৩টি (৮.১২%) শহরাঞ্চলীয় সড়কে সংঘটিত হয়েছে।


দুর্ঘটনার ধরন:
দুর্ঘটনাসমূহের ৬৭টি (২৩.৬৭%) মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১১২টি (৩৯.৫৭%) নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে, ৬২টি (২১.৯০%) পথচারীকে চাপা/ধাক্কা দেওয়া, ৩১টি (১০.৯৫%) যানবাহনের পেছনে আঘাত করা এবং ১১টি (৩.৮৮%) অন্যান্য কারণে ঘটেছে।

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার ধরন ও প্রকৃতি বিশ্লেষণ:
ঈদ উদযাপনকালে ১২৮টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১৫৬ জন নিহত হয়েছে, যা মোট নিহতের ৪১.৪৮ শতাংশ। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার হার ৪৫.২২ শতাংশ।

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার ধরন বিশ্লেষণে দেখা যায়-
১. অন্য যানবাহনের সাথে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটেছে ১৬.১৯ শতাংশ।
২. মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৪১.৯৫ শতাংশ।
৩. অন্য যানবাহনের মোটরসাইকেলে ধাক্কা/চাপায় দুর্ঘটনা ঘটেছে ৩৯.০৪ শতাংশ এবং
৪. অন্যান্য কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে ২.৮% শতাংশ।

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত চালক ও আরোহীদের মধ্যে ৫১.৪২ শতাংশের বয়স ১৪ থেকে ২০ বছর।

২০২১ সালের ঈদুল ফিতর উদযাপনকালে ১২১টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১৩৪ জন নিহত হয়েছিল। এ হিসাবে এ বছর মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা বেড়েছে ৫.৭৪% এবং প্রাণহানি বেড়েছে ১৬.৪১%।

দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহন:
দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহনের মধ্যে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান-পিকআপ-ট্রাক্টর-ট্রলি-লরি ১৮.৯৫%, মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-জিপ ৭.০৫%, যাত্রীবাহী বাস ১৮.৫৪%, মোটরসাইকেল ২৭.৬২%, থ্রি-হুইলার (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-টেম্পু) ১৯.৫৫%, স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহন- (নসিমন-ভটভটি-মাহিন্দ্র-টমটম) ৪.৬৩% এবং বাইসাইকেল-প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান ৩.৬২%।

দুর্ঘটনার বিভাগভিত্তিক পরিসংখ্যান:
দুর্ঘটনার বিভাগভিত্তিক পরিসংখ্যান বলছে, ঢাকা বিভাগে দুর্ঘটনা ২৯.৩২% ও প্রাণহানি ২৮.১৯%, রাজশাহী বিভাগে দুর্ঘটনা ১৮% ও প্রাণহানি ১৭%, চট্টগ্রাম বিভাগে দুর্ঘটনা ২০.৮৪% ও প্রাণহানি ১৯.৪১%, খুলনা বিভাগে দুর্ঘটনা ৯.১৮% ও প্রাণহানি ১০.১০%, বরিশাল বিভাগে দুর্ঘটনা ৫.৩০% ও প্রাণহানি ৫.৫৮%, সিলেট বিভাগে দুর্ঘটনা ২.৪৭% ও প্রাণহানি ২.৩৯%, রংপুর বিভাগে দুর্ঘটনা ৮.৪৮% ও প্রাণহানি ১০.৬৩% এবং ময়মনসিংহ বিভাগে দুর্ঘটনা ৬.৩৬% ও প্রাণহানি ৬.৬৪% ঘটেছে।

ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। এ বিভাগে ৮৩ টি দুর্ঘটনায় ১০৬ জন নিহত হয়েছেন। সিলেট বিভাগে সবচেয়ে কম ৭টি দুর্ঘটনায় ৯ জনের প্রাণহানি হয়েছে।

এছাড়া একক জেলা হিসেবে ঢাকা জেলায় সবচেয়ে বেশি ১৯টি দুর্ঘটনা ঘটেছে এবং নাটোর জেলায় সবচেয়ে বেশি ১৮ জন নিহত হয়েছেন। শরীয়তপুর, খাগড়াছড়ি, নড়াইল, ঝালকাঠি, ঠাকুরগাঁও এবং নেত্রকোনা- এ ছয় জেলায় সামান্য সংখ্যক দুর্ঘটনা ঘটলেও প্রাণহানির কোনো তথ্য নেই।