বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৩ ১৪২৬   ১৮ মুহররম ১৪৪১

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
সর্বশেষ:
প্রধানমন্ত্রী ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন মঙ্গলবার দাবি না মানলে বিদ্যালয়ে তালা লাগাবে প্রাথমিকের শিক্ষকরা প্রধানমন্ত্রী রাজশাহী যাচ্ছেন রোববার লাকসামে কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্য গ্রেফতার খাল উদ্ধারের পর চালু হবে ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট : তাজুল ইসলাম ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ এখন ঢাকায় শেখ হাসিনার একান্ত প্রচেষ্টায় ৫০০ মডেল মসজিদ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে নতুন ডিএমপি কমিশনারের শ্রদ্ধা
৭৯

২৩ বছরেও শুরু হয়নি কল্পনা চাকমা অপহরণ মামলার বিচার

প্রকাশিত: ১১ জুন ২০১৯  

২৩ বছরেও শুরু হয়নি তৎকালীন হিল উইমেনস ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক কল্পনা চাকমা অপহরণ মামলার বিচার কাজ। ১৯৯৬ সালের ১২ জুন মধ্যরাতে রাঙামাটির নিউলাল্যাঘোনা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে অপহরণের শিকার হন তিনি।

আজ মঙ্গলবার (১১ জুন) রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে দুপুরে এক গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করে হিল উইমেন্স ফেডারেশন। এ সময় তারা কল্পনা চাকমা অপহরণের দ্রুত বিচার দাবি করেন।


গোলটেবিল বৈঠকে আলোচকরা অভিযোগ করেন, কল্পনা চাকমার অপহরণকারী লেফট্যান্ট ফেরদৌস ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা এখনো বহাল তবিয়তে রয়ে গেছেন।

আলোচক ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, ‘কল্পনা চাকমা অপহরণ মামলার তদন্ত কাজই এখনও শেষ হয়নি। তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিলে সেই প্রতিবেদনটাকে আমলে নেয় আদালত। প্রতিবেদনে কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তখন সেটার বিচার কাজ শুরু হয়। কল্পনা অপহরণ মামলার বিচার কি হচ্ছে? বিচার আছে কোথাও? কারণ তদন্ত প্রতিবেদনটাই শেষ হয়নি।’

২০১৫-১৬ সালে এই মামলার প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন জ্যোতির্ময় বুড়য়া। তিনি বলেন, ‘যে সমস্যাটা এখন পর্যন্ত দেখছি, যিনি মামলার তদন্ত করছেন, সময়ের পর সময় চেয়ে যাচ্ছেন। পুলিশ সুপার (এসপি) এই তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন। এক পর্যায়ে এমনও হয়েছে যে, মামলার তদন্ত থেকে অব্যাহতি চেয়েও আবেদন করেছিলেন এই বলে যে, আমি তো তদন্ত করে কিছু পাচ্ছি না, আমাকে অব্যাহতি দেন।’

তিনি বলেন, ‘এখানকার দেয়া নোটেও বলা হয়েছে, যদি কোনো বিশেষ বাহিনী জড়িত থাকে, সেটা সেনাবাহিনী হোক কিংবা রাষ্ট্রের যেকোনো বাহিনী হোক; কোনো বাহিনীর সদস্য জড়িত থাকলে সেটার তদন্তও শেষ হয় না, বিচারও হয় না।‘

এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম শুধু নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলা বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

মামলার সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকাকালীন নিজের তৎপরতার কথা জানিয়ে জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, ‘অভিযুক্ত লেফট্যান্ট ফেরদৌসকে ২০১৫-১৬ সালের দিকে আমরা তাকে ট্রেস (খোঁজার) চেষ্টা করেছি। ওই সময় আমরা খোঁজ পেয়েছিলাম, সে ময়মনসিংহে আছেন, কিন্তু তার কোনো পদোন্নতি হয়নি। এরপরের ঘটনা কিন্তু আর জানি না।’

তিনি বলেন, ‘তার যদি বিচার হয় তাহলে তার বাহিনীও তো তার ভাগীদার হয়। এ রকমের একটা ধারণা দাঁড়িয়ে গেছে। এই জায়গাগুলো থেকে বের হতে হবে।’

অনুষ্ঠানে ইউমেন্স ফেডারেশনের পক্ষ থেকে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘কল্পনা চাকমা অপহরণ হওয়ার পর এ নিয়ে হাজার রকমের প্রতিবন্ধকতা ও ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। হিল উইমেন্স ফেডারেশন এখনও হাল ছেড়ে দেয়নি। এর সুষ্ঠু বিচার ও অপরাধীদের বিচার হতেই হবে।’

হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সভাপতি নিরূপা চাকমা, লেখক ওমর সুদূরীসহ অনেকে এ আলোচনায় অংশ নেন।

এই বিভাগের আরো খবর