এই দিন

বৃহস্পতিবার   ০৪ মার্চ ২০২১   ফাল্গুন ২০ ১৪২৭   ২০ রজব ১৪৪২

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
৮৫

যানজট নিরসনে চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করছে জিএমপি ট্রাফিক বিভাগ

গাজীপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

বহুমুখী চ্যালেঞ্জ নিয়ে গাজীপুর মহানগরী সাধারণ মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। যখন সারা দেশের উন্নয়নের কাজের অংশ হিসাবে গাজীপুরে বিভিন্ন মহাসড়কে রাস্তা কাজ চলমান তখন ট্রাফিক সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে জিএমপি ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের।


যেমন গাজীপুর চান্দনা চৌরাস্তা চারটি মহাসড়ক রয়েছে প্রতিটি সড়ক মহানগরীর ব্যস্ত সড়ক। এই সব সড়ক দিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজারো গাড়ী চলাচল করে। চৌরাস্তা এলাকায় একদিকের রাস্তা বন্ধ রেখে আরেক দিকের চালু রাখতে এমন পরিস্থিতিতে একটি রাস্তা বন্ধ করে অপরটি চালু করলে কয়েক মিনিটের মধ্যেই ওই রাস্তা যানজটের সৃষ্টি হয়। তার উপর রয়েছে ঢাকা টু ময়মনসিংহ প্রধান মহাসড়ক যে সড়কটি কিছুখন বন্ধ রাখলে কয়েক কিলোমিটার যানজট। কিছু দুর সামনে ভোগড়া বাইপাস সেখানে ঢাকা টু ময়মনসিংহ মহাসড়ক বন্ধ থাকলে চান্দনা চৌরাস্তা পর্যন্ত যানজট চলে আসে। তার সাথে চন্দনা চৌরাস্তাসহ মহাসড়কের বিভিন্ন অংশে সড়কে বিভিন্ন উন্নয়নের কাজ চলমান এতে যানবাহন চলাচলের জন্য দিতে হচ্ছে বিকল্প সড়ক। এছাড়া কিছু পরিবহন ড্রাইভারদের ট্রাফিক নিয়ন না মানার প্রবনতা তো রয়েছে। একটু সুযোগ পেলে গাড়ি নিয়ে ছুটাছুটি শুরু করে, সবচেয়ে বড় সমস্যা মটরসাইকেল ও ব্যাটারি চালিত অটো। এদের কারনে ট্রাফিক সেবায় ব্যাঘাত সৃষ্টি। এদের কে ট্রাফিক পুলিশ কিছু বললে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওরা গাড়ি নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। তাই প্রতিটি মহুতে ট্রাফিক পুলিশদের চ্যালেঞ্জ ও ঝুঁকির সাথে কাজ করতে হচ্ছে।


সাধারণ মানুষের মতামত, গাজীপুর মহানগরী বিভিন্ন অংশে বর্তমানে গাজীপুর সিটি কর্পোরশন ,সড়ক ও জনপথ, এলজিডিআর, মেট্রো রেল প্রকল্পের কাজ চলমান এসময় ট্রাফিক পুলিশ ভুমিকা সত্যিই প্রশংসনীয় গাজীপুর মেট্রোপলিটন হওয়ার পর থেকে আমরা অনেক ভাল আছি। জিএমপি পুলিশ পক্ষ হতে আমাদের বিভিন্ন সেবা দিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া ট্রাফিক পুলিশের বিভিন্ন পদক্ষেপে নগরীর যানজট কমেছে। গাজীপুর মহানগরী কে যানজট মুক্ত হলে সড়কে নিয়ম শৃখলা ফিরে আসতে হবে ও ট্রাফিক পুলিশ বাড়াতে হবে এছাড়া কোনাবাড়ি ও কাশিমপুর নিয়ে একটি ট্রাফিক জোন করতে হবে তবে কমে পারে যানজট।


এর আগে থেকে, জিএমপি ট্রাফিক পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা নগরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় যেমন,কোনাবাড়ি,চান্দনা চৌরাস্তা, ভোগড়া বাইপাস,সালনা,মীরের বাজার,টঙ্গীসহ গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে যানবাহন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি সড়কের পাশে গাড়ি পার্কিং না করে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্ধারিত স্থানে যানবাহন রাখার জন্য চালকদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে ট্রাফিক বিভাগের পক্ষ থেকে। যারা আইন অমান্য তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।


জিএমপি ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার খালেদ বোরহান বলেন, প্রতিটি মুহূর্তে নগরকে যানজট মুক্ত রাখতে তৎপরতা শুরু হয়েছে। বিশেষ করে গাড়িগুলোকে ট্রাফিক পুলিশ একটি নির্ধারিত স্থানে পার্কিং করাতে চেষ্টা করছেন। এছাড়া নগরী প্রতিটি রাস্তা সচল রাখতে পারলে আমাদের ভোগান্তি কমবে বলে মনে করছেন।


জিএমপি ট্রাফিক উওর বিভাগ সহকারী পুলিশ কমিশনার মেহেদী হাসান দিপু বলেন, আমি নতুন যোগদান করেছি মাএ কয়েকদিন হয়েছে। সবাই কে সাথে নিয়ে কাজ করলে ট্রাফিক সেবা প্রতিটি নাগরিকের দোরগোড়ায় পৌছে দিতে পারব। জিএমপি মাননীয় পুলিশ কমিশনার মহোদয়ের ও উপ-পুলিশ কমিশনার ট্রাফিক বিভাগ যানজট নিরসনে প্রতিটি পুলিশ সদস্য কে নির্দিষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন।

এই বিভাগের আরো খবর