বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৩ ১৪২৬   ১৮ মুহররম ১৪৪১

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
সর্বশেষ:
প্রধানমন্ত্রী ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন মঙ্গলবার দাবি না মানলে বিদ্যালয়ে তালা লাগাবে প্রাথমিকের শিক্ষকরা প্রধানমন্ত্রী রাজশাহী যাচ্ছেন রোববার লাকসামে কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্য গ্রেফতার খাল উদ্ধারের পর চালু হবে ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট : তাজুল ইসলাম ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ এখন ঢাকায় শেখ হাসিনার একান্ত প্রচেষ্টায় ৫০০ মডেল মসজিদ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে নতুন ডিএমপি কমিশনারের শ্রদ্ধা
১০৩

পয়েন্ট হারিয়ে হতাশ বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ১২ জুন ২০১৯  

আশঙ্কাই সত্যি হলো। অবশেষে সেই পয়েন্ট ভাগাভাগি, যেটা মোটেও চাইছিল না বাংলাদেশ। কারণ টানা দুই ম্যাচ হেরে যাওয়ায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় ছাড়া অন্য কিছু চিন্তা করতে পারেনি দল। শেষ চারের সমীকরণ মেলাতে ব্রিস্টলে দুই পয়েন্ট বড্ড দরকার ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু মূল্যবান পয়েন্ট হারিয়ে হতাশা বাংলাদেশ শিবির।

ম্যাচ পরিত্যক্ত হবার পর সংবাদ সম্মেলনে এসে সেই হতাশার কথা জানালে কোচ স্টিভ রোডস। তিনি বলেন,‘ গত দুই ম্যাচে আমরা হেরেছি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আমারা জয় চেয়েছিলাম। পয়েন্ট হারানোটা খুবই দু:খজনক। যদিও শ্রীলঙ্কা যথেষ্ঠ শক্তিশালী। কিন্তু আমরা জয়ই চেয়েছিলাম। কিছুই তো করার নেই। আসলে ইংল্যান্ডে আবহাওয়া সস্পর্কে কিছুই আগে থেকে বলা যায় না।’

চার ম্যাচে বাংলাদেশের পয়েন্ট ৩, পয়েন্ট টেবিলের সাত নম্বরে। পরের ম্যাচ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে, টনটনে। সেখানকার আবহাওয়ার পূর্বাভাসও ভালো নয়। আগামী কয়েকদিনে টনটনেও বৃষ্টি হবে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ আবহাওয়া বিভাগ। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচে যদিও পয়েন্ট হারাতে হয় তবে শেষ চারের আশা অনেকই ফিকে হয়ে যাবে বাংলাদেশের।

শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট ভাগ্য বটে। বৃষ্টির কল্যাণে শক্তিশালী দলের বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচে এক পয়েন্ট করে পেয়েছে তারা। সঙ্গে এক জয়ে তাদের পয়েন্ট চার। পয়েন্ট টেবিলের পাঁচ নম্বরে লঙ্কানরা। ব্রিস্টলে মূল্যবান এক পয়েন্ট হারিয়ে বাংলাদেশ হতাশ হলেও পয়েন্ট পয়ে খুশিই শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন,‘ মাচ পরিত্যাক্ত হওয়া কাম্য নয়। এটা কোনো সুখকর বিষয় নয়। আমরা খেলতে এসেছি। খেলতে চাই। বৃষ্টির কারণে ম্যাচ না হওয়া হতাশার। হ্যাঁ, পয়েন্ট পেয়েছি। এটা ভালো। পয়েন্ট পাওয়ায় আমি খুশি।’

ব্রিস্টলের আবহাওয়ার যা অবস্থা তাতে ক্রিকেট কেন হাডুডুও সম্ভব ছিল না। তীব্র শীত, বাতাস এবং সেই সঙ্গে বৃষ্টি। বাংলাদেশে এমন আবহাওয়া হলে বলা হতো প্রাকৃতিক বিপযয়। গতকাল সকালের দিকে আবহাওয়া ভালোই ছিল। কিন্তু দুপুরের পর থেকে শুরু হয় হালকা বৃষ্টি। বিকাল ও সন্ধ্যায় আকাশ মেঘে ঢাকা থাকলেও বৃষ্টি হয়নি। কিন্তু আজ সকাল থেকে বৃষ্টি শুরু হয় আবার।

ম্যাচ শুরু হওয়ার কথা ছিল স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে দশটায়। দেড়টার দিকে দুই আম্পায়ার মাঠ পরিদর্শন করে ম্যাচ পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন দুই আম্পায়ার।