ব্রেকিং:
একে একে ১৩টি কফিন নিলো পরিবার তাপমাত্রা একদফা কমে বিদায় নেবে শীত

শনিবার   ২৩ মার্চ ২০১৯   চৈত্র ৮ ১৪২৫   ১৫ রজব ১৪৪০

তরুণ কণ্ঠ|Torunkantho
সর্বশেষ:
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই মেক্সিকোতে জ্বালানি পাইপলাইনে বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩ স্বাস্থ্যখাতের মাফিয়া ডন মিঠু! সংরক্ষিত মহিলা আসনে লাকসামের রিনা আলম আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী অনিয়মে শাস্তি পেল ৩৭ হজ এজেন্সি প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় নেতাদের নামে ফেসবুক খুলে প্রতারণা, গ্রেফতার ৫ ২৭ জানুয়ারি থেকে মোবাইল ফোনের সাত দিনের নিচের সব প্যাকেজ বন্ধ
৩৫

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় মৃত্যু ঝুঁকিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৫ নভেম্বর ২০১৮  

হাসপাতাল ভবনের দ্বিতীয় তলায় মহিলা ও পুরুষ ওয়ার্ডের প্রবেশ দ্বারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নোটিশ টাঙিয়ে দিয়েছে। সেখানে লেখা আছে এ ওয়ার্ডের ছাঁদ ভেঙ্গে পড়তেছে, এখানে থাকলে নিজ দায়িত্বে থাকবেন। তারপরও নিজ নিজ দায়িত্বে রোগীরা সেখানে থাকছেন। নিচ্ছেন চিকিৎসা সেবা। চিকিৎসক ও নার্সরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ হাসপাতালে কাজ করে যাচ্ছেন। এ ছাড়া চিকিৎসক সংকটে গত ৭ মাস ধরে এ হাসপাতালে অপারেশন বন্ধ রয়েছে।

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বর্তমানে এ অবস্থা বিরাজ করছে দীর্ঘ দিন যাবত। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, কোটালীপাড়া উপজেলার সাড়ে ৩ লাখ মানুষকে চিকিৎসাসেবা দিতে ৪০ বছর আগে ৩১ বেডের এ হাসপাতাল ভবন নির্মাণ করা হয়। হাসপাতাল ভবনটি এখন জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ। দ্বিতীয় তলা ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সেখানে ছাদের পলেস্তারা, ঢালাই, ভিমের ঢালাই খসে পড়ছে। ছাদের রড বেরিয়ে গেছে। অনেক সময় পলেস্তারা খসে পড়ে প্রতি নিয়ত রোগী, নার্স ও চিকিৎসকরা আহত হচ্ছেন। এ কারণে হাসাপাতাল কর্তৃপক্ষ মহিলা ও পুরুষ ওয়ার্ডের প্রবেশ দ্বারে সতর্কতা নোটিশ টাঙিয়ে দিয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র আরো জানিয়েছে, ৩১ বেডের এ হাসপাতালটিকে ৫০ বেড করা হয়েছে। কিন্তু এখানে জনবল রয়েছে ৩১ বেডের। ২২ জন চিকিৎসকের স্থলে কর্মরত রয়েছেন মাত্র ৯ জন চিকিৎসক। গত ৭ মাস ধরে গাইনি ও অ্যানেসথেশিয়া বিশেষজ্ঞ নেই। এ কারণে বন্ধ রয়েছে অপারেশন।

কোটালীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল বলেন, প্রকৌশল বিভাগ অনেক আগেই এ ভবন পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছে। আমরা এখানে রোগী রাখতে চাই না। রোগীরা জোর করে এখানে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা সেবা নেন। তাই আমরাও সতর্কতা মূলক নোটিশ টাঙিয়ে দিয়েছি। ৩ মাসের মধ্যে হাসপতালের এ ভবন ভেঙে নতুন আধুনিক ভবন নির্মাণ কাজ শুরুর প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এখানে চিকিৎসক সংকট প্রকট। ৭ মাস ধরে হাসপাতালে গাইনি ও অ্যানেসথেশিয়া বিশেষজ্ঞ নেই। তাই অপারেশন বন্ধ রয়েছে। চিকিৎসক সংকটের মধ্যেও প্রতিদিন ৩/৪ শ রোগীকে আমরা চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছি।